ভ্যাকসিন চুষে চুষে ক্যাম্পাসে যাব

0
9

করোনা ভাইরাসের কারনে স্কুল,কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস বন্ধ প্রায় ৬ মাস।হঠ্যাৎ করে ক্যাম্পাস গুলো বন্ধ হওয়ায় ছাত্র ছাত্রীরা চলে আসতে হয়েছে তাদের নিজেদের বাড়িতে।ক্যাম্পাস গুলোর কার্যক্রম সব অনলাইন ভিত্তিক হলেও প্রয়োজনীয় মোবাইল ফোন,ডাটা ও নেটওয়ার্কের কারনে অনেকেই ক্লাস বা অনলাইন ভিত্তিক কার্যক্রম গুলো তে অংশ গ্রহন করতে পারছে না।এছাড়াও যে সকল ছাত্র ছাত্রীরা তাদের নিজেদের খরচসহ পরিবারের খরচ চালাত টিউশনি বা পার্ট টাইম জবের মাধ্যমে করোনা ভাইরাসের কারনে আজ সে গুলোও বন্ধু।এতে করে মধ্য বিত্ত বা নিম্ন মধ্য বিত্ত পরিবার গুলো তে নেমে আসছে এক ভয়াবহ অবস্থা।

আর এই অবস্থায় অনেক শিক্ষার্থী আবার ক্যাম্পাসে ফিরে যেতে চায়।কিন্তু এটা কত টুকু যুক্তিক যে করোনার প্রভাব এখনও কমে নাই প্রতিদিন ৪০(+/-) এর মিত্যু, ৩০০০(+/-) এর মত নতুন আক্রান্ত। আর অন্য দিকে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনও এখনও বাজারে আসে নাই।তাহলে কি ক্যাম্পাস খোলে দিলে শিক্ষার্থীরা আক্রান্ত হবে না।
যেখানে বাংলাদেশের মত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো তে অনেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ক্লাস রুম গুলো তে গাদাগাদি করে বসে ক্লাস করতে হয়,আবার অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্র ছাত্রীদের যাতায়াত ব্যবস্থা বাস আর সে বাস গুলো তে গাদাগাদি করে যাতায়াত করতে হয় তাহলে কি করোনা ভাইরাস ছড়ানোর সম্ভাবনা নেই?
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে দুটি ভাগ হয়ে গেছে।কেউ চান বিশ্ববিদ্যালয় খোলা হোক আবার কেউ চান বিশ্ববিদ্যালয় খোলা না হোক।তবে বিশ্ববিদ্যালয় না খোলার পক্ষ্যেই বেশির ভাগ শিক্ষার্থী কেননা বিশ্ববিদ্যালয় খোলার সাথে সাথে করোনাভাইরাসের আক্রান্ত বেড়ে যেতে পারে যেহেতু বাংলাদেশ থেকে করোনা ভাইরাস তেমন ভাবে নির্মূল হয় নি বা ভ্যাকসিন আবিষ্কার করা হয় নি।তাই সরকার কে এ ব্যপারে সার্বিক দিব বিবেচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here